ইন্দ্রজিৎ : মৌলীনাথ গোস্বামী

গল্প

ইন্দ্রজিৎ

This image has an empty alt attribute; its file name is MOULINATH-G.jpg

মৌলীনাথ গোস্বামী

কখন লিখব! সময় কোথায়!- হতাশ হয়ে মাথায় হাত দিয়ে বসে ভাবে ইন্দ্রজিৎ। দুরন্ত গতির ভাঙাচোরা জীবন, যাপনের পায়ে পায়ে হাহাকারের মত বেজে ওঠে…

প্রতিদিন সকাল আটটায়, পাশের পাড়ার চারতলা ফ্ল্যাটের নৈশপ্রহরীর অতন্দ্র উর্দির খোলস থেকে বেরিয়ে, সাইকেল চালিয়ে বাড়ি ফিরে এসে, নাকেমুখে কোনমতে কিছু গুঁজেই আবার ছুটতে হয় তাকে। গন্তব্য ছাপাখানা। সাড়ে ন’টায় হাজিরা। গ্র্যাজুয়েট ইন্দ্রজিৎ সেখানে সারাদিন অক্ষর আর শব্দ নিয়ে খেলে। কখনও সে কম্পোজ়িটর। কখনও প্রুফরিডার। আবার প্রয়োজনে মেশিনম্যানও। এতদিনের অর্জিত শিক্ষা কাজে লাগিয়ে পেটের ভাত জোগাড় করার ব্যস্ততা। বাধ্যবাধকতা।খাটাখাটনির চূড়ান্ত বাড়াবাড়ি, উপার্জন বাড়ন্ত। রাবণীয় অভাবের সঙ্গে যুঝতে, প্রেস-মালিক নামক আর এক রাবণের শোষণের সঙ্গে আপস করে, সারাদিন ঘাড় গুঁজে অক্ষর আর শব্দ ঘেঁটে চলে সে… লোহা আর সীসার ছোট বড় ধাতব শীতল অক্ষর। লেটারপ্রেসের ভ্যাপসা খুপরি, এক আবছায়া ঘরে ক্ষয়ে যাওয়া অসংখ্য কাঠের ব্লক, পরিত্যক্ত ফর্মা, রঙিন কালির খালি ডিব্বা, ভাঙা রোলার, দানবের মতো এক ছাপাই মেশিন আর অগুনতি কালিমাখা কাগজের আবর্জনার স্তূপীকৃত মেঘের অন্তরালে, একটানা বসে, অখ্যাত সাহিত্যিকের স্বপ্নপূরণ করে সে। গল্পকার হওয়ার স্বপ্ন। কবি হওয়ার স্বপ্ন। আনকোরা নতুন কাগজের সুবাসিত বুকে, ছাপার অক্ষরে নিজেদের সৃষ্টিকে দেখতে পাওয়ার স্বপ্ন।

ইন্দ্রজিতের হাতেই সব রচনার রূপান্তর ঘটে। যন্ত্রের মতো ফন্টের কেস থেকে স্বরবর্ণ, ব্যঞ্জনবর্ণ আর যতিচিহ্ন তুলে নিয়ে, এক ঠায় শব্দের মালা সাজায় সে। হাতের লেখার থেকে ছাপার লেখায় ধীরে ধীরে বদলে যায় কোন তরুণ কবির কবিতা, অথবা কোন অনামী গল্পকারের গল্প। কোমরে খিল ধরে, চোখে চাপ পড়ে, তবু কাজটা ভালো লাগে। খুব যত্ন নিয়ে করে সে। যেন নিজেরই লেখা। টাইপ সাজাতে সাজাতে একটার পর একটা পাণ্ডুলিপি পড়ে। বিশেষ করে কবিতার। মন দিয়ে পড়ে। পড়তে পড়তে ডুবে যায়। মুগ্ধ হয়… কারণ সে নিজে কবিতা লিখতে বড় ভালোবাসে। লেখার চেষ্টা করে আর স্বপ্ন দেখে-

তার নিজের লেখা কবিতার বই হবে… একদিন সে-ও কবি হবে…

আর তাই, আঙুল যখন অন্য লোকের কবিতা সাজাতে ব্যস্ত, ওর মন নিজের একান্তে নিঃশব্দে সাজিয়ে চলে নিজস্ব কবিতা। মনের ফর্মায় ইন্দ্রজিৎ সারাক্ষণ বুনে চলে নিজের সৃষ্টি, নিজের কবিতা। সে যে কবি হতে চায়। নীরেন্দ্রনাথের মতো ঋজু অথচ কোমল কবি। অথবা জয় গোস্বামীর মতো অবাক ছন্দময়। তীব্র আকাঙ্ক্ষা তাড়া করে তাকে। সবসময়। নিজের ভেতরে ঘুণপোকার মতো একটানা কুরকুর কুরকুর করে চলে। যখন রাস্তায় সাইকেল চালিয়ে প্রেসে যায় অথবা বাড়ি ফেরে অথবা যখন ফ্ল্যাটবাড়ির পায়রার খোপে নিঝুম রাত নেমে আসে, তখন সিঁড়ির তলায় শুয়ে ইন্দ্রজিতের মনের ভাবনার গভীরে, কুয়াশার মতো পাক খায় শব্দেরা… নিরাকার ধুম্রজাল ভেদ করে কখনও কুণ্ডলি পাকিয়ে উঠে আসে দু’-চারটে মনের মতো লাইন। ছটফট করে ওঠে ইন্দ্রজিৎ। হয়ত তখন হাতের কাছে কলম বা কাগজ থাকে না। মনে রাখার মরিয়া চেষ্টা করে। থাকেও। কিন্তু প্রেসের কাজের ফাঁকহীন ব্যস্ততার মাঝে, লিখে রাখা হয় না লাইনগুলো। নিজের ভেতরে ঘুরপাক খেতে খেতে সেগুলো একদিন মিলিয়ে যায়। হতাশা গ্রাস করে ওকে। ওর নিজের ভেতরে কে যেন ক্রমাগত চিৎকার করে বলতে থাকে–

হচ্ছে না! হচ্ছে না! এভাবে হয় না!

প্রতিনিয়ত দানাবাঁধা ভাবনাগুলোকে জারাতে না পারার আক্ষেপ, না লিখতে পারার খেদ ওকে নিরন্তর পীড়া দেয়। একটু, অ-নে-ক-টা সময় যদি পাওয়া যেত, তাহলে হৃদয় উজাড় করে কবিতা লিখতে পারতো– ভাবে ইন্দ্রজিৎ…

কোন কোনদিন সুযোগ এসে যায়। প্রেসে বসে, আগের দিনের বা রাতের মনে করে রাখা লাইনগুলো লিখে রাখে, হাতের কাছেই পেয়ে যাওয়া কালিমাখা কোন চিলতে কাগজের সাদা পিঠে। ভাবে, বাড়ি ফিরে লেখাটা শেষ করবে। কিন্তু বিধি ক্ষুধার্ত। পেটে জ্বলন্ত আগুনের কঠিন গদ্য ওকে আর সেই নিঃসঙ্গ লেখাটার কাছে ফেরার সুযোগ দেয় না। যদি বা দেয়, কিন্তু ততদিনে কাগজের টুকরোটা কোথায় হারিয়ে যায়… তন্নতন্ন করে খুঁজেও আর পায় না। কোথায় রেখেছিল মনেও পড়ে না। নিজের মাথা ঠুকতে মন চায়। ব্যর্থতার বিষণ্নতা ঘিরে থাকে তাকে। একটা আনমনা ভাব। একটা কষ্ট। লিখতে না পারার যন্ত্রণা। মনের একান্ত অভিলাষ বাস্তবে রূপায়িত করতে না পারার গ্লানি। কবি হতে না পারার দুঃখ। যদিও একা, তবু অভাবের সংসারে সেই দুঃখটা ঠিক করে অনুভব করারও সময় পায় না ইন্দ্রজিৎ। ফ্ল্যাটবাড়ির সিঁড়ির তলায় পাতা অবসন্ন বিছানায় জেগে বসে ভাবে ইন্দ্রজিৎ–

কোনদিন কি পারবে সে কবি হতে! মনের মতন কবিতা লিখতে!

দীর্ঘশ্বাস পড়ে…

রোজ সন্ধে ছ’টা বেজে যায় ছাপাখানার কয়েদ থেকে মুক্তি পেয়ে বেরুতে বেরুতে। পথে চায়ের দোকানে দাঁড়িয়ে এক গ্লাস গরম চা আর একটা খাস্তা বিস্কুট। তারপর অনেকটা পথ সাইকেল চালিয়ে অবশেষে বাড়ি। হাত-পা ধুয়েই স্টোভ জ্বালিয়ে ভাতে-ভাত ফুটিয়ে নেওয়া। সঙ্গে একটু আলু, একটা ডিম। একার জন্য এর বেশি করতে ইচ্ছে হয় না। তবু ডাল রাঁধে মাঝে মধ্যে। তবে ফোড়ন দেওয়ার বড় হ্যাপা। তাই ওটা হয় কম। কোনরকমে গিলেই আবার দৌড়তে হয় নাইটগার্ডের অভিনয় করতে। আধো ঘুমে জাগরণে রাত কাবার করে, বাড়ির বুড়ি ছুঁয়েই আবার সাড়ে ন’টায় প্রেসে। ছুটি বলে কিছু নেই। রবিবার যদিও ঘোষিতভাবে প্রেস বন্ধ থাকে, তবু প্রায় রবিবারই সকালের দিকে প্রেসে যায় সে। যাওয়া মানেই উপরি আমদানি। এমনিতেই কতটুকু আর মাইনে পায় সে! বাজারদরের ঊর্ধমুখী দৌড়ের সাথে পাল্লা দিয়ে, রবিবারের এই দৌড়টুকু না করলেই নয়। টানটান রোজনামচায় সময়ের বড় অভাব, কারণ তার অর্থেরও যে বড় অভাব।

রবিবার প্রেসে হাজিরা দেওয়ার আরও একটা কারণ অবশ্য আছে। ‘কাব্যিক’ কবিতা গোষ্ঠী। ইন্দ্রজিৎ তাদের সদস্য। সাহিত্য চর্চায় নিবেদিত বেশ পুরোনো সংগঠন। নিয়মিত পত্রিকা বেরয় প্রতি মাসে। কবিতা-কেন্দ্রিক নানাবিধ অনুষ্ঠান করে তারা… সেমিনার, সাহিত্য বাসর, কবিতামেলা, কবিতা পাঠের আসর… এই টানেই এদের সঙ্গে যুক্ত হওয়া। প্রেসের কাছেই একটা ভাড়া ঘরে, খ্যাতনামা কবিদের কবিতা নিয়ে আলোচনাচক্র করে ওরা… রবীন্দ্রনাথ, জীবনানন্দ, শঙ্খ ঘোষ, নীরেন্দ্রনাথ… এঁদের লেখা পাঠ হয়। ইন্দ্রজিৎ সেইসব শোনে আর রোমাঞ্চিত হয়। কী সব লেখা! আহা! এমন এক লাইনও যদি লিখতে পারত সে- ভাবে ইন্দ্রজিৎ। গায়ে কাঁটা দেয়। এছাড়াও ‘কাব্যিক’ আয়োজিত কবিতা পাঠের অনুষ্ঠানে বা কবিতামেলায় কত মানুষ কবিতা পড়তে আসে! নামী, অনামী, তরুণ, বৃদ্ধ। মাইকের সামনে দাঁড়িয়ে ডায়রির পাতা থেকে নিজেদের লেখা কবিতা পড়ে। ওদের শুনতে শুনতে ইন্দ্রজিতেরও সাধ জাগে। কল্পনা করে, সে-ও একদিন স্টেজে উঠে কবিতা পড়ছে… সবাই শুনছে মগ্ন হয়ে… তারিফ করছে… তারও কবিতা ছাপা হচ্ছে বিভিন্ন পত্রিকায়… হয়ত বা কোন নামী কবির সাথে একই সংখ্যায়! ঘোর কেটে গেলে দীর্ঘশ্বাস ছাড়া আর কিছু হাতে আসে না।

আসার কথাও নয়। কারণ, গোষ্ঠীর সাথে ইন্দ্রজিতের সম্পর্ক মোটেও কাব্যিক নয়। বরং দস্তুরমত শোষণের। কাব্যিকের যারা কর্ণধার তারা মূলত টেবিলের কাজ সারেন। এতে কায়িক পরিশ্রম কম। কিন্তু বাইরে ছোটাছুটির যাবতীয় ধন্যবাদহীন কাজ, সবটাই করতে হয় ইন্দ্রজিৎকে… যেমন, কোন ব্যস্ত কবির বাড়ি থেকে লেখা নিয়ে আসা, অথবা প্রেসে লেখা ছাপতে দিতে যাওয়া, প্রুফ নিয়ে আসা, অনুষ্ঠানের নিমন্ত্রণপত্র অথবা পত্রিকার সৌজন্য-সংখ্যা বিভিন্ন লেখকের বাড়িতে পৌঁছে দেওয়া… এমন নানারকম কাজ ইন্দ্রজিৎকে নিজের গ্যাঁটের কড়ি খরচ করেই করতে হয়। সে এতটাই মুখচোরা যে মুখফুটে গোষ্ঠীর রথী-মহারথীদের কিছু বলতেও পারে না। এমন নয় যে অন্য সদস্যরা কেউই এইসব কাজ করতে পারবেন না, কিন্তু করেন না। কারণ ইন্দ্রজিৎ আছে যে। ও যেন একটা ফালতু মানুষ! ফালতুই তো… কারণ, ও যে অন্য সব সদস্যদের মত ভালো চাকরি করে না। ভালো উপার্জন করে না। তাই ওকে দিয়ে সহজেই খিদমত খাটানো যায়। খাটানো হয়। এতে অবশ্য খেদ নেই ওর। কবিতার খাতিরে এইটুকু সইতে নিঃশর্তে রাজি আছে সে। প্রেস থেকে, কোনদিন আধবেলা কোনদিন সারাবেলা ছুটি নিয়ে, এইসব ছোটাছুটি করে। আর তাই সপ্তাহের ছুটি পুষিয়ে দিতে রবিবার প্রেসে যেতে হয় তাকে।

সকলের জন্য সবকিছুই করে ইন্দ্রজিৎ, কিন্তু নিজের জন্য কবিতা আর লেখা হয়ে ওঠে না। একান্ত অভিলাষ ছোঁয়া হয় না। এত কিছুর পরে সময় বা মানসিক স্থিতি, কোনটাই অবশিষ্ট থাকে না। হাঁপিয়ে ওঠে সে। হাঁসফাঁস করে। লিখতে না পারার অস্থিরতা কুরে কুরে খায় তাকে। নিজের অসহায়তায় নিজেরই মাথা ঠুকতে ইচ্ছে করে। খালি মনে হয়, কেন এমন একটা জীবন দিল ভগবান! একটা গোটা কবিতাও লেখা হয়ে ওঠে না! অন্য কবিদের দেখে ঈর্ষা হয় মাঝে মাঝে… কেমন মসৃণ জীবন তাদের! কত সময় লেখা নিয়ে ভাবনাচিন্তা করার। লেখা তো আর সুইচ নয় যে টিপলেই আলোর মত জ্বলে উঠবে! তার জন্য একটা মানসিক স্থিরতা দরকার, ভাবনার অনেকটা অবকাশ দরকার, ছন্দ, মাত্রা, বিন্যাস সবকিছুর জন্য যথেষ্ট সময় দরকার… এসব কিচ্ছুই নেই যে তার জীবনে। অথচ সে যে কবি হতে চায়! … মনেপ্রাণে চায়। তীব্রভাবে চায়। এটা তার কাছে স্বপ্ন… রাতের এবং দিনের। আর স্বপ্ন নিয়েই তো মানুষ বেঁচে থাকে।

ইন্দ্রজিৎ তাই স্বপ্নটাকে বাঁচিয়ে রাখে। ধিকিধিকি। একটা রুলটানা লম্বা খাতার পাতাদের ঘুমের ভেতর। সেইখানে বিন্যস্ত রুলের অনুশাসনের মাঝে ইন্দ্রজিতের শব্দরা হাত ধরাধরি করে ভাবের কুচকাওয়াজ করে। সাকুল্যে তিন-চারটে কবিতা। ছিমছাম হাতের লেখায়। বাদবাকি সব এলোমেলো পংক্তির গুচ্ছ– অসমাপ্ত, কাটাকুটিতে ভরা। লেখার সংখ্যার স্বল্পতা লেখকের সময়াভাব পরিষ্কার জানিয়ে দেয়। খাতার মলাটের ওপর মিহি ধুলোর আস্তরণ। বেশ কিছুদিন হয়ে গেল হাত পড়েনি। সাদা পাতার গায়ে নতুন কবিতার নকশা যেমন ফুটে ওঠে না, তেমনই পুরোনো কবিতাদের কাছেও ফিরে আসা হয় না। ত্যাজ্য সন্তানের মত ওরা পড়ে থাকে… বিস্মৃত, অবহেলিত। তবু ইন্দ্রজিতের মনে দু’-লাইন কবিতা গুটিপোকার মত গোল হয়ে শুয়ে থাকে, প্রজাপতি হওয়ার অপেক্ষায়। লেখার সুযোগ না থাকলে সেগুলো মনে রাখার চেষ্টা করে। মুখস্ত করে রাখে। টাটকা টাটকা মনে থাকে বটে, তবে বেশিরভাগটাই পরে হারিয়ে যায়। অনেকদিন এমন হয়, লেখার অবকাশ যদি বা পায়, লিখতে বসে অনুভব করে- লেখা আসছে না। অস্থির অস্থির লাগে। ঘরময় পায়চারি করে সে। লিখতে না পারার প্ৰচণ্ড কষ্টে ছটফট করতে থাকে। আর বুঝি স্বপ্নপূরণ হল না! তার অপ্রকাশিত কবিতার বইয়ের পাতারা যন্ত্রণায় ফড়ফড় করে ওঠে…

নাছোড়বান্দা ভাবনারা আনাগোনা থামায় না। এই সেদিন, তাও প্রায় তিন সপ্তাহ হয়ে গেল, প্রেসে একমনে কাজ করতে করতে কিছু এলোমেলো লাইন মাথায় এসেছিল। সেগুলোকে মনের মধ্যেই নাড়াচাড়া করছিল ইন্দ্রজিৎ। যেমন করে থাকে। অভাবিতভাবেই আটটি লাইন তৈরি হয়ে যায়। লাইনগুলো এত সুন্দর ধরা দিয়েছিল যে ও নিজেই চমৎকৃত হয়েছিল! প্রেসের একটা বাতিল কাগজের একপাশে ছোট ছোট হরফে তড়িঘড়ি সেই আটটি লাইন লিখে রেখেছিল ইন্দ্রজিৎ। তারপর ভাঁজ করে জামার পকেটে রেখে দিয়েছিল। সেই থেকে রোজ লেখাটা সাথে করে নিয়ে আসে… যদি কখনও শেষ করা যায় লেখাটাকে! খুব ভালো তৈরি হচ্ছে লেখাটা। ইন্দ্রজিৎ খুব খুশি ছিল এটা ভেবে যে কবিতা তাকে ছেড়ে যায়নি। তিন সপ্তাহে অবশ্য মন থেকে একটু আবছা হয়ে গিয়েছিল লাইনগুলো, কিন্তু ইন্দ্রজিতের উৎসাহে কোন কমতি ছিল না। মাঝে মাঝেই প্যান্টের পকেটে হাত দিয়ে কাগজটার অস্তিত্ব অনুভব করত সে। করে আস্বস্ত হতো। কেমন একটা নিশ্চিন্ত বোধ করতো। বহুদিন বাদে একটা লেখা নিয়ে তার মনে একটা চাপা উত্তেজনা, একটা ভালোলাগা সঞ্চারিত হচ্ছিল…

আজকের মতো প্রেসের কাজ শেষ। মন টানছে। বাড়ি ফিরে লেখাটা শেষ করতে হবে। আরও কয়েকটা লাইন মাথায় এসেছে তার। মন সেইখানে মশগুল। প্যান্টের বাঁ-পকেটে হাত দিয়ে কাগজটার অস্তিত্ব অনুভব করল সে। কাগজটা যেন ধুকপুক ধুকপুক করছে। টুল থেকে উঠে হাঁটতে গিয়ে অন্যমনস্ক ইন্দ্রজিতের আড়ষ্ট পা ধোঁকা দিল। টাল সামলাতে গিয়ে পায়ের ঠোক্করে উল্টে গেল মেঝেতে রাখা দামি রঙের কৌটো। অনেক টাকার লোকসান। আচমকা ঘটে যাওয়া ঘটনায় হতচকিত হয়ে গেল ইন্দ্রজিৎ! মুহূর্তের বিভ্রমে দিশেহারা ইন্দ্রজিৎ হাতের কাছে কিছু না পেয়ে পকেট থেকে কবিতার কাগজটা বের করে, মেঝেতে গড়িয়ে পড়া রঙ মুছতে বসে গেল… কয়েক মুহূর্ত… হঠাৎ সম্বিৎ ফিরে পেল! ততক্ষণে অসমাপ্ত কবিতার পাতা গাঢ় লাল কালিতে ভরে গেছে… অনেকদিন আগে লেখা আটখানা লাইন আর মনেও নেই!

ঘটনার আকস্মিকতায় বিহ্বল ইন্দ্রজিৎ, রক্তের মতো লাল রঙ মাখা কোঁচকানো কাগজের মণ্ডটা, দু’-হাতে আঁকড়ে ধপ্ করে মেঝেতে থেবড়ে বসে ফুঁপিয়ে কেঁদে ওঠে! অস্ফুট গোঙানির মতো তার হাঁ করা মুখগহ্বর থেকে বেরিয়ে আসে–

‘ঈশ্বর! আমি কবি হতে চেয়েছিলাম!’

This image has an empty alt attribute; its file name is MANGROVE.jpg

মৌলীনাথ গোস্বামী

জন্ম ১৯৭০

আজন্ম বসবাস আসানসোলে। স্কুলজীবন কেটেছে আইরিশ মিশনারিদের মাঝে। ম্যানেজমেন্ট নিয়ে স্নাতকোত্তর। বর্তমানে, রাজ্য সরকারের আধিকারিক।

দীর্ঘ সময় ধরে কবিতা ও গল্প, উপন্যাসের চর্চা করে চলেছেন। বিশ্বাস করেন, জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত, প্রতিটি বস্তু নিয়ে কবিতা রচনা করা সম্ভব। তাঁর লেখায় বারবার উঠে এসেছে প্রেম, বিচ্ছেদ, মানুষের সামাজিক অবস্থান এবং গভীর মৃত্যু-চেতনা। একাধিক পত্র-পত্রিকায়, তাঁর কবিতা, গল্প নিয়মিত প্রকাশিত হচ্ছে।

কবির প্রথম কাব্যগ্রন্থ- দয়াল । প্রকাশকাল, বইমেলা, ২০২০, প্রতিভাস, কোলকাতা।

লিখবেন, যতদিন জীবন লেখাবে তাঁকে দিয়ে…

This image has an empty alt attribute; its file name is ttttt888-1024x200.jpg

লেখকের আরও লেখা

ধুলো-মানুষের দেশ : মৌলীনাথ গোস্বামী

About S M Tuhin

দেখে আসুন

যাপনের জীবন যাত্রা : ঋভু চট্টোপাধ্যায়

যাপনের জীবন যাত্রা ঋভু চট্টোপাধ্যায় -তুমি আজ কিন্তু সন্ধেবেলায় বেরোবে না বাবা, আমাকে লগের প্রবলেম …

1,584 কমেন্টস

  1. Hi there, just became aware of your blog through Google, and found that it’s really informative.
    I am gonna watch out for brussels. I’ll be grateful if you continue this in future.
    Lots of people will be benefited from your writing. Cheers!

  2. Post writing is also a fun, if you know after that you can write if not it is complex to write.

  3. Can you tell us more about this? I’d care to find out some additional information.

  4. Thanks designed for sharing such a pleasant thinking, post is nice, thats why i have read it
    entirely

  5. I know this web site offers quality depending articles and additional stuff, is there any other site which offers these kinds of information in quality?|

  6. Hi there just wanted to give you a quick heads up. The text in your article seem to be running off the screen in Safari. I’m not sure if this is a formatting issue or something to do with web browser compatibility but I figured I’d post to let you know. The layout look great though! Hope you get the problem resolved soon. Many thanks|

  7. I enjoy what you guys are usually up too. This type of clever
    work and exposure! Keep up the fantastic works guys I’ve added
    you guys to blogroll.

  8. What’s up, the whole thing is going sound here
    and ofcourse every one is sharing information, that’s actually good, keep up writing.

  9. You need to take part in a contest for one of the most useful sites on the
    net. I am going to recommend this blog!

  10. I just like the helpful information you provide for your articles.
    I will bookmark your weblog and check once more right here
    regularly. I am moderately sure I will be informed lots of
    new stuff right here! Good luck for the following!

  11. Thank you for sharing your thoughts. I really appreciate your efforts and I will be waiting for your next write ups thank you once again.|

  12. Greetings from Ohio! I’m bored at work so I decided to browse your site on my iphone during
    lunch break. I really like the info you present
    here and can’t wait to take a look when I get home.

    I’m surprised at how fast your blog loaded on my phone ..
    I’m not even using WIFI, just 3G .. Anyhow, superb blog!

  13. I am really inspired together with your writing
    skills as smartly as with the format to your blog.
    Is that this a paid topic or did you customize it
    yourself? Either way stay up the excellent high quality
    writing, it is uncommon to see a nice blog
    like this one today..

  14. I have been browsing online more than three hours nowadays, yet I
    never found any attention-grabbing article like yours.
    It’s lovely price enough for me. Personally, if
    all webmasters and bloggers made just right content material as you did, the web shall be much
    more useful than ever before.

  15. I enjoy, cause I found exactly what I was having a look for.
    You have ended my 4 day lengthy hunt! God
    Bless you man. Have a great day. Bye

  16. you’re actually a just right webmaster. The web site loading
    pace is amazing. It sort of feels that you’re doing any unique trick.
    Moreover, The contents are masterwork. you’ve
    performed a wonderful process on this matter!

  17. I am in fact grateful to the holder of this web page who has shared this wonderful piece of writing at here.

  18. I have been surfing online more than three hours today, yet I
    never found any interesting article like yours. It’s pretty worth
    enough for me. In my view, if all site owners and bloggers made good content as you did, the internet will be much
    more useful than ever before.

  19. flagyl class cephalexin augmentin 500mg

  20. I visited multiple sites however the audio feature for audio songs present at this website is
    truly wonderful.

  21. clindamycin sulfate zithromax tablets bactrim liquid

  22. I am sure this paragraph has touched all the internet people, its really really fastidious paragraph on building up
    new website.

  23. clindamycin abx clindamycin dosing iv flagyl

  24. Kimberly Meekins

    erythromycin bacterial cefdinir precautions zithromax g6pd

  25. There’s definately a lot to know about this issue.

    I love all of the points you have made.

  26. It’s very trouble-free to find out any topic on web as compared to books, as I found this post at this web site.

  27. celecoxib code celecoxib contain sulfur celebrex renal dosing

  28. I have been surfing on-line greater than three hours as of late, yet I never found any interesting article like yours.

    It is lovely price enough for me. Personally, if all webmasters and bloggers made good content material as you did, the web
    will be much more useful than ever before.

  29. all the time i used to read smaller articles or reviews that as well clear their motive, and that is also happening with this article which I am reading now.|

  30. Thanks for any other great post. The place else may anyone get that kind of info in such a perfect way of
    writing? I’ve a presentation next week, and I am at the look for such info.

  31. You will find doing what we eat your very best curiosity plus by staff with low self-esteem stay great.
    Exactly where you be trained in order to write is really
    a have a look at lady who will be beneficial points you might have obligations.
    Visitors world wide web site visitors merely incredibly finest in addition to elite information. With consideration waiting for him.

  32. I got this web page from my buddy who told me concerning this web
    site and at the moment this time I am browsing this
    website and reading very informative articles or reviews
    here.

  33. Supply childrens. Wherever an individual gather to join is a check out lady who are lovely matters you’ve accountabilities.

    Getting the web page appropriate size of a secret design for us into their buddies
    to mention of course while doable. Enthusing with each as well as
    they could further laptop products.

  34. Very good info. Lucky me I found your website by accident (stumbleupon). I’ve book marked it for later!|

  35. The little one before you want to body language as well as to ensure the tavern having a
    beneficial execute communicates away continues to
    be struggling to take place. Deal with the special development in addition to many.
    Then they produced a personalized Anniversary Day time!
    On myself precisely what the idea.

  36. This is really interesting, You are a very skilled blogger. I have joined your feed and look forward to seeking more of your great post. Also, I’ve shared your web site in my social networks!|

  37. We stumbled over here by a different page and thought I should
    check things out. I like what I see so now i’m following you.
    Look forward to finding out about your web page again.

  38. Kids while experiences end up being comprised. Better goals or maybe person is showed to try and do the item catches in the
    past. Must be Very Internet pay a visit to carat brilliant To find.
    Though we’d want to cry our principal!

  39. Hello, after reading this awesome paragraph i am
    too cheerful to share my familiarity here with friends.

  40. Hello, i think that i saw you visited my web site thus i came to “return the favor”.I am attempting to find things to improve my web site!I suppose its ok to use some of your ideas!!|

  41. I every time spent my half an hour to read this webpage’s content every day along with a cup of coffee.|

  42. Walks us back. Gain effectively and regularly assume that any of us envision the child as a way becoming a situation. Visitors web visitors definitely incredibly greatest
    in addition to full information. But you and sustenance.

  43. We may state honest brain, that before associate may be prosperous.

    Someplace people realize to impart is often a look at ladies who
    will be beneficial ideas you could have obligations. In the marketplace.
    Stimulating with each and every and they can easily other laptop designs.

  44. Magnificent goods from you, man. I’ve understand your stuff previous to and you are just too fantastic. I really like what you have acquired here, certainly like what you’re saying and the way in which you say it. You make it enjoyable and you still take care of to keep it wise. I can not wait to read far more from you. This is really a tremendous web site.|

  45. A means. Pounds or perhaps jane is easier declared than some
    other. Have to be Excellent Affiliate check out carat amazing To find.
    In me what this.

  46. Hello everyone, it’s my first pay a visit at this website, and piece of writing is in fact fruitful in favor of me, keep up posting these
    types of content.

  47. Is because this specific conduct ends up being thrusting
    too slim. Mass or even the girl with easier
    said than others. Must be Super Online pay a visit to carat great To find.
    Inspiring with every single along with they could new pc styles.

  48. Hey I know this is off topic but I was wondering if you knew of any widgets I could add to my blog that automatically tweet my newest twitter updates. I’ve been looking for a plug-in like this for quite some time and was hoping maybe you would have some experience with something like this. Please let me know if you run into anything. I truly enjoy reading your blog and I look forward to your new updates.|

  49. I’m not that much of a internet reader to be honest but your sites really nice, keep it up! I’ll go ahead and bookmark your site to come back in the future. Cheers|

  50. First off I would like to say terrific blog! I had a quick question in which I’d like to ask if you don’t mind. I was curious to find out how you center yourself and clear your thoughts prior to writing. I have had difficulty clearing my mind in getting my ideas out. I truly do take pleasure in writing however it just seems like the first 10 to 15 minutes are usually lost just trying to figure out how to begin. Any recommendations or tips? Appreciate it!|

  51. Its not my first time to go to see this web site, i am visiting this site dailly and obtain nice information from here every day.|

  52. It’s a pity you don’t have a donate button! I’d
    most certainly donate to this superb blog! I suppose for now i’ll settle for bookmarking and adding your RSS feed to my
    Google account. I look forward to fresh updates and will talk about this site
    with my Facebook group. Chat soon!

  53. Is because this specific behavior is boosting way too thin. Take care
    of your current personal enlargement in addition to the whole.
    In the marketplace. With consideration awaiting him.

  54. Spring as a happier long term. Influence or she is easier pronounced
    than some other. Boost upward there are typically find out the item.
    Even though we would need to contact my personal elementary!

  55. Very quickly this site will be famous amid all blogging users,
    due to it’s good posts

  56. Nourished toddlers. Acquire efficiently in addition to routinely consider we envision the
    toddler to be able becoming a condition. Have to be Super Online visit carat great To find.

    But you and raise.

  57. Natural meats take set off attention, this before close friend might
    be profitable. Inside trance like living one particular
    dinner as well as restless when you to regulate your own lifetime.

    Must be Very Affiliate pay a visit to carat outstanding
    To find. But you and look after.

  58. I am sure this post has touched all the internet visitors, its really really pleasant paragraph
    on building up new web site.

  59. I will immediately clutch your rss feed as I can not
    find your email subscription link or e-newsletter service.
    Do you have any? Please allow me recognize in order that
    I may just subscribe. Thanks.

  60. Woah! I’m really digging the template/theme of this site.
    It’s simple, yet effective. A lot of times it’s tough to get that “perfect balance”
    between usability and visual appearance. I must say you’ve done a very good job with this.
    In addition, the blog loads super quick for
    me on Opera. Superb Blog!

  61. I’ve been browsing online more than 4 hours today, yet I never found any interesting article like yours.
    It’s pretty worth enough for me. In my opinion, if all webmasters and bloggers made good content as you did, the net will be much more useful than ever before.

  62. Woah! I’m really loving the template/theme of this website.
    It’s simple, yet effective. A lot of times it’s challenging to get
    that “perfect balance” between user friendliness and visual appearance.
    I must say you’ve done a awesome job with this. Also, the blog loads extremely
    quick for me on Safari. Outstanding Blog!

  63. Its like you learn my thoughts! You seem to grasp so much approximately this, such as you wrote the guide in it or something.
    I believe that you can do with some p.c. to pressure the message house a little bit, however instead of that, this is great blog.
    An excellent read. I will definitely be back.

  64. Hey superb website! Does running a blog such as this require a massive amount work? I’ve virtually no knowledge of computer programming however I was hoping to start my own blog in the near future. Anyways, if you have any recommendations or techniques for new blog owners please share. I understand this is off topic nevertheless I just wanted to ask. Kudos!|

  65. I’ll immediately clutch your rss feed as I can’t in finding your email subscription link or e-newsletter service.

    Do you have any? Please allow me understand in order that I could subscribe.
    Thanks.

  66. Ahaa, its fastidious discussion concerning this article at this place at this weblog, I have read all that, so at this time me also commenting at this place.|

  67. When someone writes an piece of writing he/she keeps the idea of a user in his/her mind that how a user can know it. So that’s why this post is perfect. Thanks!|

  68. Hi everyone, it’s my first visit at this site, and article is actually
    fruitful in favor of me, keep up posting such content.

  69. Thanks so much regarding giving me personally an update on this subject matter on your blog. Please understand that if a brand-new post becomes available or if any improvements occur about the current publication, I would be considering reading a lot more and learning how to make good usage of those techniques you reveal. Thanks for your efforts and consideration of others by making this site available.

  70. hi!,I really like your writing so so much!
    percentage we be in contact extra approximately your article on AOL?
    I need a specialist in this house to solve my problem. Maybe that is you!
    Looking forward to peer you.

  71. This internet site is my aspiration, rattling great style and Perfect written content.

  72. If you would like to grow your experience simply keep visiting this site and be updated with the hottest gossip posted here.|